শিরোনাম :
চীনে নতুন আতঙ্ক ছড়াচ্ছে ল্যাংগায়া ভাইরাস, আক্রান্ত ৩৫ দেশে ৩০ দিনের ডিজেল, ১৯ দিনের অকটেন মজুত আছে জুলাই পর্যন্ত নির্যাতনের শিকার ১১৯ সাংবাদিক, টিআইবির উদ্বেগ গরিব মানুষের দুঃসময় কেটে যাবে : অর্থমন্ত্রী বাংলাদেশে করোনায় আরও ১ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ১৯৮ খোলাবাজারে ডলারের দাম ১১৯ টাকা ছাড়াল সংকট সাময়িক, মোকাবেলায় ঐকবদ্ধ্য থাকার আহবান স্থানীয় সরকার মন্ত্রীর বিমানবন্দরের সবাইকে ‘ভালো ব্যবহারের কোর্স’ করানোর সিদ্ধান্ত থালা-বা‌টি নি‌য়ে গরীব-মধ্যবিত্তদের মানববন্ধন নারী সহকর্মীকে আপত্তিকর মেসেজ, রসিক কর্মকর্তা সাময়িক বরখাস্ত বিপিসির লাভ-লোকসানের হিসাব জানতে চায় জনগণ : সিপিডি ইউক্রেন যুদ্ধের জন্যই তেলের দাম বেড়েছে : স্বাস্থ্যমন্ত্রী গদি টিকিয়ে রাখতে সরকার অর্থনীতির সংকট নিয়ে লুকোচুরি খেলছে: রিজভী বিএনপিরই রাজনীতি থেকে বিদায়ের সময় এসেছে: কাদের বাংলাদেশের বিশেষ কোনো দলকে সমর্থন করে না যুক্তরাষ্ট্র

স্বৈরাচারী নিজের ইচ্ছায় সরে যায় না: ড. মোশাররফ

  • শনিবার, ২২ জানুয়ারী, ২০২২

ঢাকা : স্বৈরাচারী নিজের ইচ্ছায় সরে যায় না; বলেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন। শনিবার (২২ জানুয়ারি-২০২২) দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে জিয়াউর রহমানের ৮৬তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন।

পদত্যাগ না করলে অতীতের মতো স্বৈরাচারী সরকা‌রকে বিদায় করতে হবে, দেশের চলমান সংকট সমাধানে আওয়ামী লীগ সরকারের পতন ঘটাতে হবে। দেশের মানুষকে মুক্ত করতে হবে; যোগ করেন ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন।

আওয়ামী লীগের অধীনে কোনো নির্বাচন কমিশন স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারে না উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘ইসি গঠন নিয়ে নাটক শুরু করেছে সরকার।’

আরেকটি ঘটনা হলো ৭ নভেম্বর। ১৬ ডিসেম্বর স্বাধীনতার পর যারা ক্ষমতায় এসেছিলেন তারা মুক্তিযুদ্ধের মূল চেতনা ধ্বংস করেছিল। কতা বলার স্বাধীনতা বন্ধ করেছিলো। রক্ষীবাহিনী দিয়ে মানুষ হত্যা করে প্রথম মানবাধিকার লংঘন করেছিলো। তখন ক্যু আর পাল্টা ক্যু হচ্ছিল। তখন ৭ নভেম্বর সিপাহী জনতার বিপ্লব যে সংঘটিত হলো সেটা হলো ইতিহাসের আরেকটি টার্নিং পয়েন্ট। তখন দেশের ক্ষমতার পাদপ্রদীপে আবির্ভূত হয়ে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার পুনরুদ্ধার করেন শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান। তিনি জাতিসত্তার পরিচয় দিয়েছেন। সবার ধর্মীয় স্বাধীনতা নিশ্চিত করেন। দেশের অর্থনীতিতে আমূল পরিবর্তন আনেন। মুক্তবাজার অর্থনীতি প্রতিষ্ঠা করেন। যেখানে সমাজতান্ত্রিক অর্থনীতির নামে লুটপাট চলছিল।

তি‌নি ব‌লেন, শহীদ জিয়া দেশের হারানো গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার করে বহুদলীয় গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা করেন। আওয়ামী লীগ বার বার গণতন্ত্র হত্যা করেছে আর বিএনপি তা বার বার পুনরুদ্ধার করেছে। এগুলো ইতিহাস। চাইলেই মুছে ফেলা যাবে না। তেমনি আজকে গণতন্ত্রের জন্য লড়াই করতে গিয়ে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া আজ কারাবন্দী।

তি‌নি আরও ব‌লেন, ২০১৮ সালের নির্বাচনে দিনের ভোট রাতে করে তারা সরকার গঠন করেছে। তারা বলে জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়েছে। আসলে প্রধানমন্ত্রী নির্লজ্জ। আজকে আমেরিকার গণতান্ত্রিক সম্মেলনে বাংলাদেশ দাওয়াত পায়নি। কারণ তারা বহির্বিশ্ব সবাই জানে বাংলাদেশে গণতন্ত্র নেই। যে দেশে গনতন্ত্র থাকেনা সেদেশে মানবাধিকার থাকেনা। তাই আওয়ামী লীগ আজ ১২ বছর ধরে গুম খুন ও মানবাধিকার লংঘন করে চলেছে। এটা হচ্ছে ফ্যাসিবাদী স্বৈরাচারী সরকারের বৈশিষ্ট্য। তারা ভেবেছিল দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে গ্রেফতার করে মানবাধিকার লংঘন করে ক্ষমতায় টিকে থাকবে।

‘এমনকি ২০০৪ সাল থেকে তারা বিদেশে লবিস্ট নিয়োগ করেছে। তবুও তারা তাদের অপকর্ম ধামাচাপা দিতে চেষ্টা করেছে। লবিস্টরাও ব্যর্থ হয়েছে। আজকে তাদের অপকর্মের কারণে আমেরিকার ট্রেজারি বিভাগ বাংলাদেশের একটি প্রতিষ্ঠান ও কিছু কর্মকর্তার নামে স্যাংশন দিচ্ছে। তবুও তারা আমলে নিচ্ছে না। আওয়ামী লীগ দেশের মানুষকে বিশ্বাস করে না। কেননা অতীতে জনগণ তাদেরকে লালকার্ড দেখিয়েছে। যে কারণে তারা ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচন ২৯ ডিসেম্বর রাতেই করেছে। এখন চারদিক থেকে সরকারের বিরুদ্ধে ওয়ার্নিং দিচ্ছে। র‌্যাবের বিরুদ্ধে অভিযোগ জাতিসংঘ আমলে নিয়েছে।’

তি‌নি ব‌লেন, আজকে নির্বাচন কমিশন গঠন নিয়ে সরকার যে আইন করেছে তার জাতির সাথে আরেকটি নাটক। আমরা বলেছি আওয়ামী লীগের অধীনে বিএনপি কখনো কোনো নির্বাচনে যাবে না। কেননা আওয়ামী লীগের অধীনে কোনো নির্বাচন কমিশন সরকারের স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারে না। সুতরাং এসব সংকট সমাধানে আওয়ামী লীগ সরকারের পদত্যাগের কোনো বিকল্প নেই। দেশে গনতন্ত্র পুনরুদ্ধার, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন।

আলোচনা সভায় ঢাকা উত্তর বিএনপির আহ্বায়ক আমান উল্লাহ আমান বলেন, শহীদ জিয়া আধুনিক বাংলাদেশের রূপকার। যিনি সেক্টর কমান্ডার ও জেড ফোর্সের অধিনায়ক এবং বীর উত্তম খেতাব প্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা। আজ তার অবদান মুছে ফেলতে ষড়যন্ত্র অব্যাহত রয়েছে। তার সহধর্মিণী বেগম খালেদা জিয়াকে রাজনীতি থেকে দূরে রাখতে এবং দেশনায়ক তারেক রহমানকেও দূরে রাখার ষড়যন্ত্র করছে। কিন্তু সেসব সম্ভব হবে না। তারা রয়েছেন দেশের মানুষের হৃদয়ে। কেননা শহীদ জিয়া দেশের উন্নয়নের জন্য যা করেছেন তার কখনো জাতি ভুলবেনা। বর্তমান সরকারের জনপ্রিয়তা ও জবাবদিহিতা নেই। কারণ তারা বিনাভোটের সরকার। তারা সংসদ থেকে বের না হলে জনগণ তাদেরকে বের করে আনবে এবং নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের মাধ্যমে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করবেন। সময় আসছে এই সরকারের বিরুদ্ধে স্যাংশন দেবে জনগণ।

আলোচনা সভায় ঢাকা দক্ষিণ বিএনপির আহ্বায়ক মো. আবদুস সালাম বলেন, জেডআরএফের সকল কর্মকান্ড আর্তমানবতার সেবায়। শহীদ জিয়াউর রহমান যত বড় তার কর্মময় জীবন তার চেয়ে বেশি বড়। দেশের সমৃদ্ধির জন্য সব সেক্টরে তার অবদান রয়েছে। তিনি জাতীয়তাবাদের ঘোষণা দিয়ে সমগ্র জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করেছিলেন। আজকে দেশের মুক্তিযুদ্ধ ও ইতিহাস থেকে তাকে যারা বাদ দিতে চান তারা পাগল। তাই দেশ বাঁচাতে এই মুহূর্তে আওয়ামী লীগ সরকারকে পদত্যাগ করতে হবে।

জেডআরএফের নির্বাহী পরিচালক অধ্যাপক ডা. ফরহাদ হালিম ডোনারের সভাপতিত্বে ও প্রকৌশলী মাহবুব আলমের পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও ঢাকা উত্তর বিএনপির আহ্বায়ক আমান উল্লাহ আমান, ঢাকা দক্ষিণ বিএনপির আহ্বায়ক মো. আবদুস সালাম, শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক অধ্যাপক ড. এবিএম ওবায়দুল ইসলাম, কৃষিবিদ শামীমুর রহমান শামীম প্রমুখ।

 

সংবাটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খরব
© Copyright © 2017 - 2021 Times of Bangla, All Rights Reserved