শিরোনাম :
ঘরের কাজে ব্যস্ত মা প্রাণ গেল শিশুর টানা দরপতনের বৃত্তেই পুঁজিবাজার, আর কত অপেক্ষা বিনিয়োগকারীদের! ওয়ালটনের পৃষ্ঠপোষকতায় বুয়েটে রিসার্চ ল্যাব উদ্বোধন রমজানে নিত্যপণ্যের দাম নিয়ন্ত্রণে পদক্ষেপ নিয়েছে সরকার পুলিশি বাধায় গণতন্ত্র মঞ্চের বিক্ষোভ কর্মসূচি পণ্ড, আহত ৫০ সূচকের পতনে কমেছে লেনদেন ট্রাব স্মার্ট পারফরম্যান্স অ্যাওয়ার্ড পেলো ওয়ালটন গাজীপুরে কারখানায় বিস্ফোরণের পর আগুনে শ্রমিক নিহত, দগ্ধ ৬ ভাসানচরে বিস্ফোরণ : আরও এক শিশুর মৃত্যু, মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪ আতঙ্কে আবারও গ্রেফতার শুরু করেছে সরকার: রিজভী ডিআইজি মিজানের ১৪ বছরের কারাদণ্ড বহাল বাগেরহাটে আ.লীগ নেতার রক্তাক্ত মরদেহ উদ্ধার ব্যাংকে এমডি নিয়োগে নতুন নীতিমালায় যা আছে আবারও রাজপথ দখলে মাঠে নামছে ইমরান খানের পিটিআই এক ঘন্টায় লেনদেন ২৭৫ কোটি টাকা

বিশ্বে অর্থনৈতিক সংকটের আশঙ্কা, অক্টোবরেই শেষ যুক্তরাষ্ট্রের নগদ তহবিল

  • বুধবার, ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: কংগ্রেস ঋণের সীমা না বাড়ালে ১৮ অক্টোবরের মধ্যে মার্কিন সরকার অর্থ সংকটে পড়তে পারে বলে মার্কিন ট্রেজারি সেক্রেটারি জ্যানেট ইয়েলেন সতর্ক করেছেন।

ওয়াশিংটন যথাসময়ে পদক্ষেপ না নিলে কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই যুক্তরাষ্ট্র ঋণ খেলাপি হতে পারে বলে বুধবার এক মার্কিন গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে জানা গেছে।

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আয়ের চেয়ে বেশি ব্যয় করছে যুক্তরাষ্ট্র সরকার। ফলে সেনাবাহিনীর বেতন, অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মীদের অবসরভাতাসহ অন্যান্য সুযোগ সুবিধা বন্ধ হয়েছে যাওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্র যদি ঋণের সুদ শোধ করতে না পারে তাহলে বন্ধক, গাড়ির লোন ও ক্রেডিট কার্ডের বিলও ঊর্ধ্বমুখী হয়ে যাবে।

এছাড়া, যুক্তরাষ্ট্র ঋণখেলাপি হলে দেশটির লাখ লাখ মানুষ চাকরি হারাতে পারে। একই সঙ্গে মহামারির ধকল কাটিয়ে উঠার ক্ষেত্রেও বিষয়টি নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

অবশ্য মার্কিন ট্রেজারি ডিপার্টমেন্ট এর আগেই অনুমান করেছিল যে অক্টোবরের কোনো এক সময়ে সরকারের নগদ তহবিল শেষ হয়ে আসতে পারে।

এদিকে, মার্কিন ঋণের স্থিতিশীলতাকে বৈশ্বিক অর্থনীতির ভিত্তি মনে করা হয়। তাই ওয়াশিংটনের এই দুরাবস্থার কারণে সমগ্র বিশ্বের অর্থনীতিকে সংকটে ফেলে দেবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

মার্কিন অর্থনীতির এই অচিন্তনীয় পরিণতির জন্য দেশটির দ্বন্দ্বে লিপ্ত রাজনীতিবিদদের দায়ি করেছেন বিশ্লেষকরা।

রিপাবলিকানরা এ ব্যাপারে কোনো সহযোগিতা করতে অস্বীকৃতি জানিয়ে বলেছেন ক্ষমতাসীন ডেমোক্রেটরা বেহিসাবি খরচ করে দেশের ঋণের বোঝা বাড়িয়ে দিয়েছেন।

সংবাটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খরব
© Copyright © 2017 - 2021 Times of Bangla, All Rights Reserved