শিরোনাম :
চীনে নতুন আতঙ্ক ছড়াচ্ছে ল্যাংগায়া ভাইরাস, আক্রান্ত ৩৫ দেশে ৩০ দিনের ডিজেল, ১৯ দিনের অকটেন মজুত আছে জুলাই পর্যন্ত নির্যাতনের শিকার ১১৯ সাংবাদিক, টিআইবির উদ্বেগ গরিব মানুষের দুঃসময় কেটে যাবে : অর্থমন্ত্রী বাংলাদেশে করোনায় আরও ১ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ১৯৮ খোলাবাজারে ডলারের দাম ১১৯ টাকা ছাড়াল সংকট সাময়িক, মোকাবেলায় ঐকবদ্ধ্য থাকার আহবান স্থানীয় সরকার মন্ত্রীর বিমানবন্দরের সবাইকে ‘ভালো ব্যবহারের কোর্স’ করানোর সিদ্ধান্ত থালা-বা‌টি নি‌য়ে গরীব-মধ্যবিত্তদের মানববন্ধন নারী সহকর্মীকে আপত্তিকর মেসেজ, রসিক কর্মকর্তা সাময়িক বরখাস্ত বিপিসির লাভ-লোকসানের হিসাব জানতে চায় জনগণ : সিপিডি ইউক্রেন যুদ্ধের জন্যই তেলের দাম বেড়েছে : স্বাস্থ্যমন্ত্রী গদি টিকিয়ে রাখতে সরকার অর্থনীতির সংকট নিয়ে লুকোচুরি খেলছে: রিজভী বিএনপিরই রাজনীতি থেকে বিদায়ের সময় এসেছে: কাদের বাংলাদেশের বিশেষ কোনো দলকে সমর্থন করে না যুক্তরাষ্ট্র

বাংলাদেশের ৪৩ ভাগ এলাকা উচ্চ মাত্রার ভয়াবহ ভূমিকম্পে ঝুঁকিতে

  • রবিবার, ৩ অক্টোবর, ২০২১

ঢাকা: আগামী দিনে দেশের সবচেয়ে ভয়াবহ দুর্যোগের নাম হতে পারে ভূমিকম্প। গেল কয়েক দশক ধরেই এমন আশঙ্কাও করে আসছেন আন্তর্জাতিক ও দেশীয় ভূতাত্ত্বিকরা।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এর ফলে যতটা না ক্ষয়ক্ষতি হবে ভূমিকম্পে, তার চেয়ে বেশি ক্ষতি হবে ভূমিকম্প পরবর্তী সময়ে। আর এমন ভয়াবহতা থেকে সুরক্ষা পেতে এখনই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবার পাশাপাশি মানুষের সচেতনতা বাড়ানো পরামর্শ দিচ্ছেন তারা।

গেল ১৪ বছর ধরে আবহাওয়া অধিদপ্তরে ভূমিকম্পের তাৎক্ষণিক গতিপ্রকৃতি নিয়ে কাজ করছেন আবহাওয়াবিদ মমিনুল ইসলাম।

তিনি দেখালেন চলতি বছরের শুরু থেকেই দেশে ছোট ছোট ভূমিকম্প হয়েছে বহুবার। এরমধ্যে কেবল গেল তিন মাসেই দেশের উত্তর-পূর্ব অঞ্চলে ভূমিকম্প হয়েছে সাতবার!

আবহাওয়াবিদ মমিনুল ইসলাম বলেন, সিলেটে যদি ৭ মাত্রার বেশি ভূমিকম্প হয় তখন এর প্রভাব ঢাকাতেও পাওয়া যাবে।

এই আবহাওয়াবিদের মতোই শঙ্কা করছেন ভূতাত্ত্বিকরাও। বলছেন, তিনটি গতিশীল প্লেটে অবস্থানের কারণেই চরম ঝুঁকিতে বাংলাদেশ। এরমধ্যে ৪৩ ভাগ এলাকা উচ্চ মাত্রার ৪১ ভাগ মধ্যম আর ১৬ ভাগ নিম্ন মাত্রার ঝুঁকিতে।

ভূতত্ত্ববিদ হুমায়ুন আখতার বলেন, দুই প্লেটের পরস্পর সংঘর্ষের কারণে যে শক্তির সৃষ্টি হচ্ছে তা একটা সময় ভয়াবহ আকার ধারণ করবে।

এমন অবস্থায় ভূমিকম্পের ঝুঁকির মাত্রা আরও বাড়িয়েছে অপরিকল্পিত নগরায়ন। কারণ পুরনো ভবন তো বটেই এমনকি নতুন ভবন নির্মাণেও খুব একটা গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে না ভূমিকম্পের বিষয়টি। ফলে একটি মাঝারি মাত্রার ভূমিকম্পই ধ্বসে পড়বে বেশির ভাগ ভবন।

বুয়েটের পুরকৌশল বিভাগের অধ্যাপক আনসারী বলেন, আমরা খারাপ মাটি দিয়ে বাড়ি তৈরি করছি। নানান পরিকল্পনা নেয়া হলেও তার একটিও বাস্তবায়ন হচ্ছে না।

এমন ভয়াবহ দুর্যোগ থেকে সুরক্ষা পেতে এক মুহূর্ত সময় নষ্ট না করার পরামর্শ ভূতত্ত্ব আর নগরপরিকল্পনাবিদদের।

বলছেন, এর জন্য প্রাতিষ্ঠানিক উদ্যোগের সঙ্গে সচেতন করতে হবে সাধারণ মানুষকেও। নয়তো আগামীতে যেদিন অপেক্ষা করছে বাংলাদেশের জন্য সেটি কেবলই হতে পারে চরম ধ্বংসের ইতিহাস।

সংবাটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খরব
© Copyright © 2017 - 2021 Times of Bangla, All Rights Reserved