শিরোনাম :
দেশ যে এগিয়ে যাচ্ছে তা জনগণকে জানাতে হবে: তথ্যমন্ত্রী বাংলাদেশে মোটামুটি ভালো পরিমাণে টাকা আছে: পরিকল্পনামন্ত্রী দুর্গাপূজায় জ‌ঙ্গি হামলার শঙ্কা র‌য়ে‌ছে: ডিএম‌পি ক‌মিশনার অস্ত্র সহায়তায় ইউক্রেনকে নতুন করে ১১০ কোটি ডলার দেবে যুক্তরাষ্ট্র দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে নিম্ন ও মধ্যবিত্তরা বিলুপ্তির পথে : ডা. ইরান শেখ হাসিনার হাত ধরেই উন্নত দেশ গড়ব : মেয়র তাপস মুষ্টিমেয় রাজনৈতিক লোক সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট করতে চায় : আমু ২৪ ঘণ্টায় ৫০৬ ডেঙ্গুরোগী হাসপাতালে ভর্তি নার্স-সিন্ডিকেট চক্র পাচার করছে লাখ লাখ টাকার ওষুধ তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থায় ফিরে যাওয়ার সুযোগ নেই: আইনমন্ত্রী আন্দোলনের ঘোষণায় ১৩ বছর, মানুষ বাঁচে কয় বছর: বিএনপিকে কাদের ৫ বছর রোহিঙ্গাদের লালন না করতে হলে দেশ আরও উন্নত হতো ইরানে বিক্ষোভ: হিজাব বিতর্কের আড়ালে কী? আজ কোনো অভিযোগ নাই, অনুযোগ নাই : বিদায় আইজিপি বিজিবিকে অত্যাধুনিক বাহিনী হিসেবে গড়ে তোলা হচ্ছে

দেড় কোটি টাকা নিয়ে উধাও এনজিও

  • বুধবার, ১৭ নভেম্বর, ২০২১

ঢাকা : প্রলোভন দেখিয়ে কিশোরগঞ্জের কটিয়াদীতে ভুয়া এনজিও কয়েক শতাধিক নারী-পুরুষকে প্রতারিত করে প্রায় দেড় কোটি টাকা নিয়ে উধাও হয়ে গেছে।

এতে করে চরম বিপাকে পড়েছেন ক্ষতিগ্রস্তরা। কথিত এনজিওটি ‘মানব বিকাশ সংস্থা’ নাম দিয়ে কটিয়াদী পৌর এলাকার ভিতরেই প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে অনায়াসে তাদের প্রতারণার কার্যক্রম শেষ করে সটকে পড়েছে।

এ ঘটনার পর চোখে মুখে অন্ধকার দেখছে দেড় শতাধিকেরও বেশি প্রতারিত গ্রাহক।

প্রতারিতরা স্থানীয় প্রশাসনের নিকট বিষয়টি জানিয়ে এর বিচার চেয়েছেন। ভবিষ্যতে যাতে আর কাউকে প্রতারিত না হতে হয় এনজিও সংস্থাগুলোর কার্যক্রম কঠোরভাবে মনিটরিং করার দাবি জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের নিকট।

জানা যায়, কটিয়াদী পৌর এলাকার ভিতরে বাগরাইট এলাকায় একটি ঘর ভাড়া নিয়ে এনজিওটি তাদের কাজ শুরু করে। গত দুই মাস আগে ঘরটি তারা ভাড়া নেয়। ঋণ নিতে আগ্রহীরা সদস্য হিসেবে এই এনজিওটিতে যোগ দেন। কথিত এনজিওটি তাদের কাগজে নাম দেয় ‘মানব বিকাশ সংস্থা ( এমভিএস) গভ. রেজি নং এস-৯২০১ (৭৩৮) ২০১৮ইং। রেজিস্ট্রার অফিস হিসেবে পরিচয় লেখা, সর্জনকান্দা, বড়পুল, রাজবাড়ী নামে নিবন্ধিত।

গত দুই মাসে পৌর এলাকার বীরনোয়াকান্দী, চরিয়াকোনা, বাগরাইটসহ উপজেলার ইউনিয়নের মধ্যে মসূয়া, আচমিতা, জালালপুর লোহাজুরী, মুমুরদিয়াসহ আরো অনেক এলাকায় তাদের প্রতারনার কার্যক্রম চালায়। এসব এলাকা থেকে প্রায় এক হাজার গ্রাহক সংগ্রহ করে।

সদস্যদের সহজ সর্তে ঋণ দিবার প্রলোভন দেখিয়ে প্রাথমিক ফি হিসেবে ৫০ টাকা এবং ঋণ গ্রহনে আগ্রহীদের থেকে এক লক্ষ টাকার বিপরীতে দশ হাজার, দুই লক্ষ টাকার বিপরীতে বিশ হাজার টাকা হারে জামানত গ্রহণ করে নেয়। বিশেষ করে নারীদের সদস্য বেশি করে করা হয়। ধারণা করা হচ্ছে প্রতারণার কাজ কৌশলের মাধ্যমে করতে নারীদের সদস্য হিসাবে রাখা হয়েছিল বেশি।

কথিত এই এনজিওর শাখা ব্যবস্থাপক ১৫ নভেম্বর সদস্যদের ঋণ দেওয়ার তারিখ দেন। নির্ধরিত তারিখে অফিসে এসে সদস্যরা দেখতে পান অফিস তালাবদ্ধ। মাঠ বিতরণ কর্মকতা ইয়াসিনের মোবাইল ফোনে কল দিলে সেটিও বন্ধ পান। কোনভাবেই যোগাযোগ করতে না পরে তারা প্রতারিত হয়েছেন সেটি বুঝতে পারেন। প্রতারিতরা কটিয়াদী মডেল থানায় এসে তাদের প্রতারিত হওয়ার বিষয়টি মৌখিক ভাবে জানিয়ে এর বিচার চান।

লোহাজুরী ইউনিয়নের মালিকা বেগম জানান, প্রথমে ৫০ টাকা দিয়ে সদস্য হই। তারা আমাকে একটি পাশ বই দেয়। দুই লাখ টাকার ঋণ নিতে হলে তাকে বিশ হাজার টাকা দিতে হবে বলে। গ্রাহক বিশ হাজার টাকা জমা দিলে পাশ বইতে তুলে দিয়ে বলে ঋণ পরিশোধ হলে জামানতের টাকা ফেরত পাবেন।

একই অবস্থা প্রায় সকল গ্রাহকদের। যাকে যেভাবে পেরেছে তাদের থেকে সেভাবেই টাকা হাতিয়ে নিয়েছে কথিত এনজিওটি।

প্রতারিত গ্রাহকেরা বলছেন, উপজেলা সদরে ও পৌর এলাকার মতো গুরুত্বপূর্ণ জনবহুল স্থানে কিভাবে এনজিওটি তাদের কার্যক্রম বীরদর্পে চালিয়ে গ্রাহকদের প্রতারিত করে গেল? এটি তদন্ত করে প্রশাসনের নিকট বিচার চান ক্ষতিগ্রস্তরা।

কটিয়াদী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ এসএম শাহাদত হোসেন জানান, ক্ষতিগ্রস্তরা থানায় এসে তাদের বিষয়টি মৌখিকভাবে বলেছেন। কথিত এনজিওটির সাথে জড়িতদের অবস্থান শনাক্ত করে গ্রেফতার করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার চেষ্টা চলমান রয়েছে।

কটিয়াদী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জ্যোতিশ্বর পাল জানান, এমন কোন এনজিও তাদের কার্যক্রম চালাচ্ছে তা জানা ছিল না। উপজেলাতে নিবন্ধিত এনজিওগুলোকে নিয়ে মাসিক সভা হয়। কিন্তু ‘মানব বিকাশ সংস্থা’ নামে কেউ কখনো সভায় আসতে দেখা যায়নি। ক্ষতিগ্রস্তদের থানায় মামলা দেয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। ভবিষ্যতে এমন ঘটনা যাতে আর না ঘটে সেই জন্য প্রতিটি ওয়ার্ডে সদস্য পর্যায় পর্যন্ত সচেতনতা বৃদ্ধি জন্য নির্দেশনা দেওয়া হবে।

সংবাটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খরব
© Copyright © 2017 - 2021 Times of Bangla, All Rights Reserved