শিরোনাম :
মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ‘আলবদর’ নেতা আমিনুল গ্রেফতার তুরস্কে রাশিয়ার জাহাজ আটক দেশে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে আরও ৪২ জন হাসপাতালে ভর্তি বাড়ল এলপি গ্যাসের দাম বাংলাদেশে করোনায় আরও ২ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৯০২ বিদায়ী অর্থবছরে রেমিট্যান্স প্রবাহ কমলো ১৫ শতাংশ ঢাবি ‘গ’ ইউনিটের ফল প্রকাশ, পাসের হার ১৪.৩০ হাজীরা কেন কাফনের মতো সাদা কাপড় পরেন ডব্লিউটিওতে ভারতের বিরোধিতা পাকিস্তানে যাত্রীবাহী বাস খাদে পড়ে নিহত ১৯ নির্বাচনী ইশতেহারে দেওয়া প্রতিশ্রুতি ভুলিনি : প্রধানমন্ত্রী সূচক পতনে লেনদেন চলছে বন্যায় বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত সাড়ে ১০ হাজারের বেশী মানুষ বিদ্যুৎ সংকট : আফগানিস্তান থেকে পাকিস্তানের কয়লা আমদানি লিসিচানস্ক শহরের নিয়ন্ত্রণ দাবি দুই পক্ষই

দেশে পরিবর্তন আসবে, হতাশার কোনো কারণ নেই: ফখরুল

  • শনিবার, ৩০ অক্টোবর, ২০২১

অনলাইন ডেস্ক: দেশে পরিবর্তন আসবে উল্লেখ করে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, এদেশের মানুষ কখনোই পরাজয় বরণ করেনি। পাকিস্তান থেকে শুরু করে, ৬৯’র গণঅভ্যুত্থান, একাত্তরের স্বাধীনতাযুদ্ধ, নব্বইয়ের স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলন, মানুষ যখন জেগে উঠেছে তখন অবশ্যই পরিবর্তন হয়েছে। আমি বিশ্বাস করি পরিবর্তন আসবে, হতাশার কোনো কারণ নেই।

আজ শনিবার দুপুরে রাজধানীর হোটেল সোনারগাঁওয়ে ‘অধ্যাপক আনোয়ার উল্লাহ চৌধুরী সংবর্ধনা গ্রন্থ’র প্রকাশনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

ফখরুল বলেন, আমি যেহেতু রাজনীতি করি, একটা বড় দলের সঙ্গে সম্পৃক্ত আছি, আপনারা আমাকেই জিজ্ঞাসা করবেন কবে এই অবস্থা থেকে বের হতে পারব। আমি সরাসরি উত্তর দিতে চাই, আমরা অবশ্যই বের হতে পারব।

তিনি বলেন, আমাদের সময় শিক্ষকদের একটা সম্মান ছিল। আনোয়ার উল্লাহ সাহেবরা যখন হেঁটে আসতেন, তখন শিক্ষার্থীরা মাথানত করে সম্মান জানাতো। এখন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসিদের বক্তব্য যখন শুনি তখন লজ্জা হয়। ৫০ বছরে আমরা এমন একটা শিক্ষা ব্যবস্থা তৈরি করলাম যেখানে আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যকে আমার লোক হতে হবে। হয়তো আমার এ কথায় অনেকে কষ্ট পাবেন, কিন্তু আমি বলতে বাধ্য হচ্ছি যে, আমরা এরকম একটা ব্যবস্থায় চলে গেছি।

তিনি বলেন, মানুষের কল্যাণ, দেশের কল্যাণের দিকে কারও নজর নেই। আমরা করোনার সময় দেখেছি ভয়াবহ অবস্থা, মানুষের আহাজারি, সেই সময় দেখেছি কী করে তারা অর্থ উপার্জন করবেন, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ডিজির ড্রাইভার চারশ’ কোটি টাকার মালিক। এই যে একটা অবস্থা। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ১৬৯ জনকে একরাতে নিয়োগ দিলেন, উদ্দেশ্য কিছু উপার্জন করা। এই যে একটা সমাজ আমরা তৈরি করেছি এই সমাজ থেকে ভাল কিছু পাওয়ার আশা করা খুব কঠিন।

তিনি বলেন, প্রফেসর আনোয়ার উল্লাহ চৌধুরী সাহেবের কৃতিত্ব সেই জায়গায় যে এই দুঃসময়ের মধ্যেও তিনি হতদ্যম হননি। তিনি তার কাজ করে চলেছেন। এখানেই তার সফলতা। আমি এই গুনিজনদের অত্যন্ত শ্রদ্ধা করি, কারণ তারা এখনও আমাদের আশার আলো দেখান।

সংবাটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খরব
© Copyright © 2017 - 2021 Times of Bangla, All Rights Reserved