শিরোনাম :
কেবিন ক্রুদের অন্তর্বাস পরা বাধ্যতামূলক করল পাকিস্তান টানা বন্ধে পুরোনো রূপে সদরঘাট রাশিয়ার অন্তর্ভুক্ত হলো ইউক্রেনের চার অঞ্চল, পুতিনের ঘোষণা ইউক্রেনে বেসামরিক গাড়িবহরে রাশিয়ার হামলা, নিহত অন্তত ২৩ ৩ দিনের মধ্যে সাগরে লঘুচাপ সৃষ্টি হতে পারে, বাড়বে বৃষ্টি বিএনপির পাকিস্তানই ভালো ছিল বক্তব্য এবং রডের মাথায় জাতীয় পতাকা একই সূত্রে গাঁথা : তথ্যমন্ত্রী প্রতিমাসে দেশে ধর্ষণের শিকার ৭১ শিশু বাংলাদেশে করোনায় আরও ১ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ৭০৮ বিবিসির ১০ ভাষার রেডিও সম্প্রচার বন্ধ হচ্ছে কাবুলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আত্মঘাতী হামলা, নিহত ১৯ বিশ্বকাপের প্রাইজমানি ঘোষণা, চ্যাম্পিয়ন দল পাবে ১৬ কোটি টাকা মন্দির-মণ্ডপ পাহারায় নেতাকর্মীদের থাকতে বললেন ওবায়দুল কাদের সুষ্ঠু নির্বাচন যেন না হয় সেজন্য উঠে পড়ে লেগেছে আ. লীগ: রিজভী ছেলেকে প্রকাশ্যে আনলেন বুবলী চার মাসের সাজা এড়াতে সাড়ে ৫ বছর পলাতক, অবশেষে ধরা

‘দলীয় সরকারের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয়’

  • শনিবার, ২৯ জানুয়ারী, ২০২২

ঢাকা: দেশে দলীয় সরকারের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয় বলে মনে করে গণঅধিকার পরিষদ। সংসদে নির্বাচন কমিশন গঠন আইন পাস ও সমসাময়িক পরিস্থিতি নিয়ে প্রতিক্রিয়া জানাতে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ প্রতিক্রিয়া জানায় দলটি।

শনিবার (২৯ জানুয়ারি) নয়াপল্টনে গণঅধিকার পরিষদের কেন্দ্রীয় কার্য়ালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ মন্তব্য করেন দলটির সদস্য সচিব নুরুল হক নুর।

লিখিত বক্তব্যে নুর বলেন, গত ২৭ জানুয়ারি জাতীয় সংসদে ‘প্রধান নির্বাচন কমিশনার এবং নির্বাচন কমিশনার আইন বিল-২০২২’ পাশ করা হয়েছে। যে আইনে বিগত দুটি বিতর্কিত নির্বাচন কমিশন গঠনের দায়মুক্তির বিধান রেখে নির্বাচন কমিশন

গঠনে বিরোধী রাজনৈতিক দলের সংসদ সদস্য ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের মতামতের কোন সুযোগ না রেখে সরকারি দলের পছন্দমতো নির্বাচন কমিশন গঠনের নিমিত্তে এ আইনটি পাশ করা হয়েছে বলে গণঅধিকার পরিষদ মনে করে।

তিনি বলেন, বর্তমান সরকারের সময়কালে সার্চ কমিটির মাধ্যমে গঠিত বিগত দুটি নির্বাচন কমিশন সুষ্ঠু নির্বাচন আয়োজনে ব্যর্থ হওয়ার মাধ্যমে সুস্পষ্ট প্রমানিত হয়েছে যে দলীয় সরকারের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয়। রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের ঐক্যমত ব্যতীত নির্বাচন কমিশন গঠন করা হলে তাতে জনমতের চাওয়া প্রতিফলিত হবে না। বরং বিগত বিতর্কিত দুটি কমিশনের মতোই হবে।

ডাকসুর সাবেক এ ভিপি বলেন, নতুন আইনটিতে সংসদ সদস্য ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের মতামতের সুযোগ না রেখে শুধুমাত্র সরকারি দলের এবং তাদের নিয়োগকৃত কতিপয় ব্যক্তির মতামতের বিধান রাখা হয়েছে। যেখানে জনমতের প্রতিফলন ঘটবে না। যা নির্বাচনী সংকটকে আরও ঘনীভূত করবে। এ ধরনের গনবিরোধী আইনকে গণতন্ত্রের জন্য অশনিসংকেত মনে করে গণঅধিকার পরিষদ।

ভূ-রাজনৈতিক বাস্তবতায় দেশের উন্নয়ন ও অগ্রগতির জন্য বাংলাদেশে একটি শক্তিশালী গণতন্ত্র ও স্থিতিশীল রাজনৈতিক পরিবেশ অনস্বীকার্য বলেও মনে করে দলটি।

দেশের চলমান রাজনৈতিক ও নির্বাচনী ব্যবস্থা নিয়ে সংকট নিরসনে গণঅধিকার পরিষদ রাজনৈতিক দল, সংগঠন ও নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিদের সাথে আলোচনার উদ্যেগ গ্রহণ ও সংবিধানে তত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা পুনরায় অন্তর্ভুক্তির জন্য সরকারের নিকট দাবি জানিয়ে লিখিত বক্তব্য শেষ করেন নুরুল হক নুর।

সংবাটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খরব
© Copyright © 2017 - 2021 Times of Bangla, All Rights Reserved