শিরোনাম :
রৌমারীতে মাসহ ৫ মাসের সন্তানকে গলা কেটে হত্যা সিভিল কেস ‘বেগুন ক্ষেতের মতো’, এটা পরিবর্তন করতে হবে বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক হলেন আব্দুস সালাম কালবৈশাখী ঝড় কেড়ে নিল ৫ প্রাণ, ক্ষয়ক্ষতি ব্যাপক আরও বাড়ল সোনার দাম ফিনল্যান্ডে বিদ্যুতের পর এবার গ্যাস সরবরাহ বন্ধ করলো রাশিয়া সংকটে বিপর্যস্ত শ্রীলঙ্কায় জরুরি অবস্থা প্রত্যাহার ইপিবি প্রতিনিধিদলের ওয়ালটন হেডকোয়ার্টার পরিদর্শন, পণ্য রপ্তানিতে সহায়তার আশ্বাস খাদ্য সুরক্ষায় আন্তর্জাতিক সহযোগিতা বাড়াতে বাংলাদেশ প্রস্তুত: পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী সরকার বিএনপিকে আর টোপে ফেলতে পারবে না : মোশাররফ গ্যাস-বিদ্যুতের মূল্যবৃদ্ধি দেশে অরাজকতা হতে পারে: এফবিসিসিআই জুনে পদ্মা সেতুতে দাঁড়িয়ে মানুষ পূর্ণিমার চাঁদ দেখবে: কাদের কর্তৃত্ববাদী সরকারের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন নিয়ে আশংকা আছে : জি এম কাদের ৬০ শতাংশ বেতন বৃদ্ধির দাবি সরকারি কর্মচারীদের ঢাকা-চট্টগ্রামের সঙ্গে খাগড়াছড়ির যোগাযোগ বন্ধ

আংশিক কমিটিতে দূর্বল হচ্ছে বিএনপির অঙ্গ সংগঠনগুলো

  • শুক্রবার, ২৫ মার্চ, ২০২২

ঢাকা : রাজপথে অনেকটা সরব বিএনপি। খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসা ও মুক্তির দাবিতে কয়েকমাস যাবতই মাঠে আছে দলটি। চলমান আন্দোলনকে আরো বেগবান করতে সারাদেশে বিভিন্ন কর্মসূচিও পালন করছে তারা। দেশব্যাপী সংগঠনকে শক্তিশালী করার জন্য দলটি কাজ করলেও অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনগুলো ঢেলে সাজানোর কোনো উদ্যোগ নেই বিএনপির।

বিএনপি সূত্র জানায়, দলটির ১১টি অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠন থাকলেও জাতীয়তাবাদী কৃষক দল ছাড়া আর কোনটিরই মেয়াদ নেই। অনেক সংগঠনের মেয়াদ আট বছর অতিক্রম করলেও সম্মেলনের কোনো উদ্যোগ নেই। আবার কোনো কোনো সংগঠন মেয়াদ পূর্ণ করলেও এখনো কমিটি পূর্ণাঙ্গ করতে পারেনি।

দলটির অঙ্গ সংগঠনগুলো হচ্ছে- জাতীয়তাবাদী যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল, মহিলা দল, কৃষক দল, মুক্তিযোদ্ধা দল, ওলামা দল, জাসাস, মৎসজীবী দল এবং তাতীদল। জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল এবং শ্রমিকদল হচ্ছে বিএনপির সহযোগী সংগঠন।

এদিকে সম্প্রতি কৃষক দলের কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। বাকি সব কমিটিই মেয়াদোত্তীর্ণ। কয়েকদিন আগে জাতীয়তাবাদী সামাজিক সাংস্কৃতিক সংস্থা-জাসাসের কমিটি ভেঙ্গে আহ্বায়ক কমিটি দেয়া হয়েছে।

এসব সংগঠনের অধিকাংশ মেয়াদহীন হলেও এবিষয়ে যেনো ভ্রূক্ষেপ নেই বিএনপির হাইকমান্ডের। নতুন কমিটি এবং আংশিক কমিটিকে পূর্ণাঙ্গ রূপ দেয়ার দাবি জানিয়ে আসছে পদবঞ্চিত নেতাকর্মীরা। এসব দাবিতে দলীয় কার্যালয় ভাংচুর, অনশন, বিক্ষোভসহ বিভিন্ন কর্মসূচিও পালন করেছে কমিটিতে স্থান না পাওয়া নেতাকর্মীরা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, দল পুনর্গঠন একটি চলমান প্রক্রিয়া। মূল দলের পাশাপাশি অঙ্গসংগঠনগুলোও ঢেলে সাজানোর উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। কয়েকমাস আগে ঘোষণা করা হয়েছে কৃষক দলের কমিটি। পর্যায়ক্রমে মেয়াদোত্তীর্ণ সব কমিটিই নতুন করে সাজানো হবে।

তিনি বলেন, কমিটি পুনর্গঠনে যোগ্য ও ত্যাগীদের মূল্যায়ন করা হচ্ছে এবং হবে। বিগত সময়ে হামলা-মামলা মোকাবিলা করে যারা রাজপথে ছিলেন, তারাই অগ্রাধিকার পাবেন। কারণ, সামনে আমাদের কঠিন সময়। তাই আন্দোলনমুখী নেতৃত্বকেই আমরা গুরুত্ব দিচ্ছি।

এবিষয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, আমরা বিএনপির অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনগুলো ঢেলে সাজানোর চেষ্টা করছি। ইতোমধ্যে এর কাজও শুরু করেছি। আশা করছি চলতি বছরেই সকল অঙ্গ সংগঠন সম্মেলনের মাধ্যমে নতুন কমিটি দেয়া হবে।

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন ও সরকার বিরোধী আন্দোলনের কর্মকৌশল নির্ধারণে গত বছর দলের কেন্দ্রীয় কমিটির নেতাদের সাথে বিএনপির হাইকমান্ডের সাথে ধারাবাহিক বৈঠকে বেশিরভাগ নেতাই অঙ্গ সংগঠনের পুনর্গঠন বিষয়ে দাবি তুলেছেন। তারা বলেছেন, আন্দোলনকে সফল করতে যোগ্যদের হাতে নেতৃত্ব দিতে হবে। রাজপথের পরীক্ষিতদের সামনে আনতে হবে। মেয়াদোত্তীর্ণ সকল সংগঠনকে ঢেলে সাজানোর বিষয়ে গুরুত্ব দিয়েছেন বেশিরভাগ নেতা। এমনকি অঙ্গ সংগঠনের নেতাদের অনেকেও নতুন কমিটি গঠনের বিষয়ে দাবি তুলেছেন।

যুবদল-
এ কমিটি ৬ বছরে পদার্পণ করেছে। সাইফুল আলম নীরবকে সভাপতি ও সুলতান সালাউদ্দিন টুকুকে সাধারণ সম্পাদক করে ২০১৭ সালের ১৭ জানুয়ারি পাঁচ সদস্যের আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়। মেয়াদ শেষ হওয়ার প্রায় এক মাস পর কমিটি দেয়া হলেও তাও আবার আংশিক। ১১৪ সদস্যের আংশিক কমিটিকে এখন পর্যন্ত পূর্ণাঙ্গ রূপ দিতে পারেননি। যুবদলের কমিটি নিয়ে দুই ধরনের মত রয়েছে। এক অংশ চাচ্ছে যুবদলের আংশিক কমিটি পূর্ণাঙ্গ করার সুযোগ দেয়া হোক। অন্য অংশ চাচ্ছে নতুন কমিটি।

স্বেচ্ছাসেবক দল-
২০১৬ সালের ২৭ অক্টোবর প্রয়াত শফিউল বারী বাবুকে সভাপতি ও আবদুল কাদির ভুইয়া জুয়েলকে সাধারণ সম্পাদক করে স্বেচ্ছাসেবক দলের পাঁচ সদস্যের আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়। মেয়াদ শেষেরও এক বছর পর কমিটি পূর্ণাঙ্গ করা হয়। করোনায় আক্রান্ত হয়ে ২০২০ সালে সংগঠনের সভাপতি শফিউল বারী বাবু মারা যান। এরপর হতে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি দিয়ে চলছে এ সংগঠনটি। এ কমিটির মেয়াদ পাঁচ বছর অতিক্রম হতে চলছে।

কৃষক দল-
দীর্ঘ প্রায় দুই যুগ পর ২০২১ সালের ১২ মার্চ সম্মেলম অনিুষ্ঠিত হয় জাতীয়তাবাদী কৃষক দলের। ২০ সেপ্টেম্বর কৃষিবিদ হাসান জাফির তুহিনকে সভাপতি ও শহীদুল ইসলাম বাবুলকে সাধারণ সম্পাদক করে সাত সদস্য বিশিষ্ট আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়।

ছাত্রদল-
২০১৯ সালের ১৮ সেপ্টেম্বরের কাউন্সিলে ফজলুর রহমান খোকন সভাপতি ও ইকবাল হোসেন শ্যামল সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। তিন মাস পর ৬০ সদস্যের আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়। গত বছর ১৮ সেপ্টেম্বর এ কমিটির মেয়াদ শেষ হয়েছে। এ কমিটিকে পূর্ণাঙ্গ রূপ দেয়ার জন্য পদবঞ্চিরা একাধিকবার বিক্ষোভ, অনশনসহ নানা কর্মসূুচ দিয়ে আসছে। এই বিষয়েও বিএনপির উচ্চমহল কোনো কার্যকরী ভূমিকা নেয়নি বলে পদবঞ্চিতদের অভিযোগ।

মহিলা দল-
ছয় বছর অতিক্রম হতে চলছে জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের কমিটি। আফরোজা আব্বাসকে সভাপতি ও সুলতানা আহমেদকে সাধারণ সম্পাদক করে ২০১৬ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর মহিলা দলের আংশিক কমিটি গঠন করা হয়। নির্দিষ্ট মেয়াদ শেষে ২০২০ সালের ৪ এপ্রিল তা পূর্ণাঙ্গ করা হয়। কমিটি ঘোষণার পর থেকেই অভ্যন্তরীণ কোন্দলে বেশ সমালোচিত এ সংগঠন। সম্প্রতি ঢাকা মহানগর উত্তর-দক্ষিণের কমিটিসহ কয়েকটি জেলা কমিটি নিয়ে ব্যাপক তোপের মুখে পড়েন মহিলা দলের সভানেত্রী আফরোজা আব্বাস। আফরোজা আব্বাসের বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগে তার অব্যাহতি চেয়ে বিএনপির নয়াপল্টন কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন করেন মহিলা দলের নেতাকর্মীরা। যারা এই বিক্ষোভে অংশ নিয়েছিলেন করেছিলো, পরেরদিনই তাদের দল থেকে বহিস্কার করা হয়।

জাসাস-
গেলো বছর ৬ নভেম্বরে জাসাসের নতুন আহ্বায়ক কমিটি দেয়া হয়। এর আগে ১২ সেপ্টেম্বর কমিটি বিলুপ্ত করা হয়। এতে চিত্রনায়ক হেলাল খানকে আহ্বায়ক ও জাকির হোসেন রোকনকে সদস্য সচিব করা হয়।

মৎস্যজীবী দল-
২০১৯ সালের ১৩ ফেব্রুয়ইর ১০ বছরের মেয়াদোত্তীর্ণ মৎস্যজীবী দলের কমিটিকে ভেঙে সংগঠনের সাবেক সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল ইসলাম মাহতাবকে আহ্বায়ক ও আব্দুর রহিমকে সদস্য সচিব করা হয়েছে। এতে ২৩ জন যুগ্ম-আহ্বায়কসহ ১২৯ জন সদস্য নিয়ে সর্বমোট ১৫৪ সদস্যের আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে। তিন মাসের জন্য দেয়া এই আহ্বায়ক ইতোমধ্যে তিন বছর পার করেছে।

ওলামা দল-
মেয়াদহীনভাবে চলছে বিএনপির অঙ্গ সংগঠন ওলামা দলও। দোয়া আর মিলাদ দিয়েই পার করছে বছরের পর বছর। ২০১৯ সালের ৫ এপ্রিল সাবেক সাধারণ সম্পাদক মাওলানা শাহ মো. নেছারুল হককে আহ্বায়ক এবং মাওলানা নজরুল ইসলাম তালুকদারকে সদস্য সচিব করে ১৭১ সদস্যের আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়। তিন মাসের মধ্যে সম্মেলন করার নির্দেশনা থাকলেও এখন আহ্বায়ক কমিটি দিয়ে চলছে এই সংগঠনটি।

শ্রমিক দল-
দীর্ঘ আট বছর আগে কাঊন্সিল অনিুষ্ঠিত হয় বিএনপির সহযোগী সংগঠন শ্রমিক দলের। ২০১৪ সালের এপ্রিলে শ্রমিক দলের কাউন্সিলে মো. আনোয়ার হোসাইনকে সভাপতি এবং নুরুল ইসলাম খান নাসিমকে সাধারণ সম্পাদক করে কেন্দ্রীয় কমিটি অনুমোদন করা হয়। একই বছর ২৪ সেপ্টেম্বর সংগঠনটির বিদ্রোহী অংশ এ এম নাজিম উদ্দিনকে সভাপতি ও আবুল খায়ের খাজাকে সাধারণ সম্পাদক করে ৩৫ সদস্যের পাল্টা কমিটি ঘোষণা করে।

মেয়াদোত্তীর্ণ এ কমিটিকে পুনর্গঠন করা প্রসঙ্গে সংগঠনের সভাপতি আনোয়ার হোসেন বলেন, সম্মেলনের মাধ্যমে একটি নতুন কমিটি চাই। আগামী আন্দোলনকে টার্গেট করে শ্রমিক দলের কমিটি পুনর্গঠনের কাজ চলছে।

মুক্তিযোদ্ধা দল-
প্রায় আট বছর মেয়াদ অতিবাহিত হতে চলছে এই সংগঠনটির। ২০১৪ সালের ২ ডিসেম্বর ইশতিয়াক আজিজ উলফাতকে সভাপতি এবং এম এম শফিউজ্জামান খোকনকে সাধারণ সম্পাদক করে ১৯১ সদস্য কমিটি অনুমোদন দিয়েছিলেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। বিএনপির এ অঙ্গ সংগঠনকে বিভিন্ন সময়ে সক্রিয় ভূমিকায় দেখা গেলেও মুক্তিযোদ্ধা দলের নিজস্ব কোনো কর্মসূচি নেই বললেই চলে বলে জানান নেতাকর্মীরা।

তাতী দল-
দীর্ঘ ১১ বছরের কমিটি ভেঙ্গে ২০১৯ সালে ৬ এপ্রিল আবুল কালাম আজাদকে আহ্বায়ক ও মজিবুর রহমানকে সদস্য সচিব করে আহ্বায়ক কমিটি দেয়া হয়। এই কমিটিকে তিন মাসের মধ্যে সম্মেলন করার কথা বলা হলেও চলছে এই আহবায়ক কমিটি দিয়েই। অভিযোগ রয়েছে কমিটির আহ্বায়ক আবুল কালাম আজাদের একক দখলে তাতী দল।

এসব বিষয়ে সাবেক ছাত্রনেতা ও বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু বলেন, করোনাকালীন সময়ে আমাদের স্বাভাবিক সাংগঠনিক কর্মকাণ্ড বাধাগ্রস্ত ছিলো। আমরা ইচ্ছে করলেও সাংগঠনিক তৎপরতা চালাতে পারিনি। অতি সম্প্রতি করোনার রেষ কিছুটা কমে যাওয়ায় আমরা পুরোদমে সংগঠনকে শক্তিশালী করার জন্য কাজ করে যাচ্ছি। আশা করছি অল্প সময়ের মধ্যে অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনগুলো ঢেলে সাজানো হবে। আসবে অনেক পরিবর্তন।

যুবদলের সভাপতি সাইফুল আলম নীরব বলেন, আমরা ৮৩টি সাংগঠনিক জেলায় সম্মেলন করে কমিটি করেছি। ৯৩৬টি ইউনিটের মধ্যে প্রায় ৮০০টি সম্পন্ন হয়েছে। তিনি বলেন, আমাদের সম্মেলন হবার পর ১১৪ সদস্য বিশিষ্ট আংশিক কমিটি করা হয়। আমরা খুব শ্রীঘ্রই পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করবো।

ছাত্রদলের সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন বলেন, আমরা নেতৃত্বে আসার পর থেকে কোভিড১৯-এর কারণে সাংগঠনিক কর্মকাণ্ড কিছুটা হোচট খায়। তারপরও আমরা প্রায় ১৬০০ ইউনিট কমিটি করেছি। দেশের অধিকাংশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কমিটি করেছি। আমরা খুব দ্রুত সময়ের মধ্যে পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করবো।

সংবাটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খরব
© Copyright © 2017 - 2021 Times of Bangla, All Rights Reserved